শিরোনাম
আইডিইবি ইন্ডাস্ট্রিয়াল এন্ড এন্টারপ্রেনার্স ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন এর কমিটি গঠন ডিজিটাল বাংলাদেশের পরবর্তী ধাপ ক্যাশলেস সোসাইটি : জয় এসএমই ফাউন্ডেশনের ১০০’ কোটি টাকা ঋণের ৩৩ শতাংশ পেয়েছেন নারী উদ্যোক্তারা নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের আঁতাতকরী বিএনপি নেতা নাসিরকে গনধোলাই দিলো কর্মীরা প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা নিয়ে স্বজনপ্রীতি সহ্য করা হবে না : ওবায়দুল কাদের করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় ৩২০০ কোটি টাকার নতুন প্রণোদনা প্যাকেজের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের হাসেম ফুড পরিদর্শনে এসে বিএনপির দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, পুলিশের লাঠিচার্জ চলমান লকডাউন শিথিল, ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর বিধি-নিষেধের প্রজ্ঞাপন জারি রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘে প্রস্তাব গৃহীত করোনা রোগীর চাপে চট্টগ্রাম মেডিকেলে সাধারণ রোগী ভর্তি বন্ধ করে দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:০৭ অপরাহ্ন

কাঁচপুর হাইওয়ে ওসি মহাসড়ক বন্ধ করে ফুটপাত ব্যবসা

মাহমুদ হাসান কচি, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি
আপডেট বৃহস্পতিবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২১
1

কাঁচপুর হাইওয়ে থানার (ওসি) মো: মনিরুজ্জামান ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উপর অকেজো গাড়ির ডাম্পিং প্লেজ করে পথচারীদের জায়গায় অবৈধ ফুটপাত বসিয়ে রমরমা ব্যবসা বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন।
কাঁচপুর ইন্ডাস্ট্রিয়াল (শিল্প অঞ্চল) হিসেবে গার্মেন্টস্ কর্মী পথচারীদের পথচলায় নানামূখী প্রশ্নশর্তে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এবং গার্মেন্টস্ ছুটি কালিন সময় হাজার হাজার সাধারণ শ্রমিকদের ফুটপাত দিয়ে চলাফেরায় ব্যাপক হারে বিঘ্ন ঘটে থাকে। গার্মেটস্ শ্রমিকরা মহাসড়কের উপর একটু খানি চিপা জায়গা থেকে চলতে গেলে নানা সময়ে দুর্ঘটনার স্বীকার পোহাতে হয়। এধরনের অবৈধ ফুটপাতের উপর দোকানপাট বসিয়ে দীর্ঘ বছর ধরে অবৈধ ব্যবসা বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন হাইওয়ে পুলিশ।
অনুসন্ধানে জানাগেছে, সিন্হা গার্মেন্টস্’র অপজিট লাভলী হল থেকে কাঁচপুর হাইওয়ে থানা পর্যন্ত প্রায় চার হাজারেরও বেশি অবৈধ ফুটে দোকানপাট রয়েছে। সে সকল প্রতি ফুটে দোকান প্রতি দৈনন্দিন পুলিশের নেতৃত্বে ‘‘১’শ টাকা’’ হারে চাঁদা উত্তালন করেন। লাভলী হল থেকে সোনারগাঁ পরিত্যক্ত পাম্প এলাকায় চাঁদা উত্তালনকারী রয়েছেন চাঁদাবাজ বাবুল ও জিয়া এবং সোনারগাঁ পরিত্যক্ত পাম্প থেকে হাইওয়ে থানা পর্যন্ত চাঁদা উত্তালনকারী রয়েছেন অভিযুক্ত চাঁদাবাজ মনির। আবার এধরনের ফুটপাতের মধ্যে অনেক পুলিশ কর্মকর্তাদের আত্মিও স্বজনদের দোকানপাটও রয়েছে। তাঁরা দাপট খাটিয়ে বীরদর্পে ব্যবসা বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন। এবং প্রতিটি গাড়ির ষ্ট্যান্ড থেকে মাসিক মোটা অংকের টাকা আত্মসাৎ করেন ওসি। এধরনের ফুটপাতে প্রকাশ্য পুলিশ ব্যবসা বাণিজ্য করাতে, স্থানীয় এলাকার দলীয় আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরাও তাঁদের থেকে মাথা উঁচু করতে সম্ভব হয়ে ওঠেনা। কারণ হাইওয়ে থানায় প্রতিটি ওসি যোগদান কারার পরপরই তার মতো করে অসৎ উদ্দেশ্য হাঁসিল করার লক্ষে, তারা নিজেদের ‘‘টার্গেট ফিলাপ’’ করার লক্ষে কোটি টাকার ব্যালেন্স গড়ে তোলার স্বপ্ন নিয়ে দুই বছরের মেয়াদে আপন শক্তিতে ব্যবসায় লিপ্ত থাকেন পুলিশ। সুতরাং এধরনের ‘গাজিপুর রিজিয়ন জোন’ কাঁচপুর হাইওয়ে থানা একটি গুরুত্বপূর্ণ থানা হিসেবে আসার পিছনেও ডজনে ডজনে পুলিশের ওসি প্রায় অর্ধকোটি টাকার ব্যালেন্স উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে সিরিয়ালে এসে চাকরি করতে হয় তাঁদের।


এই বিভাগের আরো খবর
greengrocers

Categories

Archives