শিরোনাম
আইডিইবি ইন্ডাস্ট্রিয়াল এন্ড এন্টারপ্রেনার্স ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন এর কমিটি গঠন ডিজিটাল বাংলাদেশের পরবর্তী ধাপ ক্যাশলেস সোসাইটি : জয় এসএমই ফাউন্ডেশনের ১০০’ কোটি টাকা ঋণের ৩৩ শতাংশ পেয়েছেন নারী উদ্যোক্তারা নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের আঁতাতকরী বিএনপি নেতা নাসিরকে গনধোলাই দিলো কর্মীরা প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা নিয়ে স্বজনপ্রীতি সহ্য করা হবে না : ওবায়দুল কাদের করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় ৩২০০ কোটি টাকার নতুন প্রণোদনা প্যাকেজের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের হাসেম ফুড পরিদর্শনে এসে বিএনপির দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, পুলিশের লাঠিচার্জ চলমান লকডাউন শিথিল, ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর বিধি-নিষেধের প্রজ্ঞাপন জারি রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘে প্রস্তাব গৃহীত করোনা রোগীর চাপে চট্টগ্রাম মেডিকেলে সাধারণ রোগী ভর্তি বন্ধ করে দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:২৬ অপরাহ্ন

চট্টগ্রামে করোনায় নতুন ৮৮ জন সংক্রমিত

ডেস্ক রিপোর্ট , পিআরবি নিউজ
আপডেট শনিবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০২১

চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন ৮৮ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। সংক্রমণের হার ৭ দশমিক ৫৩ শতাংশ। এ সময়ে করোনায় কোনো রোগীর মৃত্যু হয়নি।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী, নগরীর ছয়টি ও কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে গতকাল শুক্রবার চট্টগ্রামের ১ হাজার ১৬৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। নতুন শনাক্ত ৮৮ জনের মধ্যে শহরের বাসিন্দা ৭৭ জন এবং চার উপজেলার ১১ জন। উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৬ জন হাটহাজারীতে। এছাড়া, আনোয়ারা ও ফটিকছড়িতে ২ জন করে এবং সীতাকু-ে ১ জন রয়েছেন। জেলায় এ পর্যন্ত মোট সংক্রমিতের সংখ্যা ৩২ হাজার ১২ জন। এর মধ্যে মহানগর এলাকার ২৪ হাজার ৯১১ জন এবং বিভিন্ন উপজেলার ৭ হাজার ১০১ জন।
এ সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো রোগীর মৃত্যু হয়নি। মোট মৃতের সংখ্যা ৩৬৬ জনই রয়েছে। তবে, এ ক্ষেত্রে সিভিল সার্জন কার্যালয় সংশোধন করে জানিয়েছে, করোনায় মৃতদের মধ্যে মহানগর এলাকার বাসিন্দা ২৬৬ জন এবং গ্রামের ১০০ জন। আগের দিনের রিপোর্টেও ২৬২ জন মহানগর এলাকার এবং ১০৪ জন বিভিন্ন উপজেলার বলে উল্লেখ করা হয়েছিল। গতকাল সুস্থ্যতার ছাড়পত্র পেয়েছেন ৩৯ জন। এতে আরোগ্য লাভকারীর সংখ্যা বেড়ে এখন ৩০ হাজার ৫৯ জনে উন্নীত হলো। এর মধ্যে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ৪ হাজার ৪৪ জন এবং হোম আইসোলেশনে সুস্থ্যতার পর ছাড়পত্র পান ২৬ হাজার ১৫ জন। হোম কোয়ারেন্টাইনে গতকাল যুক্ত হন ১৫ জন ও ছাড়পত্র পান ৪০ জন। বর্তমানে ১ হাজার ৪২৪ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন।
ল্যাবভিত্তিক রিপোর্টে জানা যায়, গতকাল সবচেয়ে বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) ল্যাবে। এখানে ৪৭১ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২১ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব মিলে। ফৌজদারহাটস্থ বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ২৬২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৮ জন জীবাণুবাহক চিহ্নিত হন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১০৫টি নমুনা পরীক্ষায় ২৭ জনের দেহে সংক্রমণের প্রমাণ মেলে।
নগরীর বেসরকারি তিন ল্যাবরেটরির মধ্যে ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ও শেভরনে ৮৪টি করে এবং মা ও শিশু হাসপাতালে ১৮টি নমুনা পরীক্ষা হয়। এতে যথাক্রমে ১৩, ১৪ ও ৫টি নমুনায় ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া যায়।
এদিন চট্টগ্রামের ১৪৪ জনের নমুনা পাঠানো হয় কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে। পরীক্ষায় সবগুলোরই নেগেটিভ রেজাল্ট আসে।
তবে, ভেটেরিনারি এন্ড এনিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় ও আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) গতকাল কোনো নমুনা পরীক্ষা হয়নি।
রিপোর্ট বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ল্যাবভিত্তিক সংক্রমণ হার ছিল চমেকে ৪ দশমিক ৪৬, বিআইটিআইডি’তে ৩ দশমিক ০৫ শতাংশ, চবি’তে ২৫ দশমিক ৭১, ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে ১৫ দশমিক ৪৮ শতাংশ, শেভরনে ১৬ দশশিক ৬৭ এবং মা ও শিশু হাসপাতালে ২৭ দশমিক ৭৮ শতাংশ।


এই বিভাগের আরো খবর
greengrocers

Categories

Archives