শিরোনাম
আইডিইবি ইন্ডাস্ট্রিয়াল এন্ড এন্টারপ্রেনার্স ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন এর কমিটি গঠন ডিজিটাল বাংলাদেশের পরবর্তী ধাপ ক্যাশলেস সোসাইটি : জয় এসএমই ফাউন্ডেশনের ১০০’ কোটি টাকা ঋণের ৩৩ শতাংশ পেয়েছেন নারী উদ্যোক্তারা নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের আঁতাতকরী বিএনপি নেতা নাসিরকে গনধোলাই দিলো কর্মীরা প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা নিয়ে স্বজনপ্রীতি সহ্য করা হবে না : ওবায়দুল কাদের করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় ৩২০০ কোটি টাকার নতুন প্রণোদনা প্যাকেজের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের হাসেম ফুড পরিদর্শনে এসে বিএনপির দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, পুলিশের লাঠিচার্জ চলমান লকডাউন শিথিল, ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর বিধি-নিষেধের প্রজ্ঞাপন জারি রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘে প্রস্তাব গৃহীত করোনা রোগীর চাপে চট্টগ্রাম মেডিকেলে সাধারণ রোগী ভর্তি বন্ধ করে দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১৫ অপরাহ্ন

‘টুম্পা’ খ্যাত দীপাংশুর বিরুদ্ধে বিস্ফোরক সব অভিযোগ মহিলাদের

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক
আপডেট মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২১
টুম্পা খ্যাত দীপাংশু আচার্য

পিআরবি নিউজ ব্যুরো:  টলিউডে প্রতিভাবান তরুণ লিরিসিস্টদের মধ্যে তিনি অন্যতম। কবিতা, গদ্য, স্ট্যান্ড আপ কমেডি সর্বত্রই তাঁর বিচরণ। সম্প্রতি ‘টুম্পা’ ও ‘পুটকিভাই’ মিউজিক ভিডিওতেও মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউয়ার কুড়িয়েছেন। সেই তিনিই দীপাংশু আচার্য এবার বিদ্ধ হলেন ‘মি টু’ তিরে।

বেশ কয়েকজন মহিলা সোশ্যাল মিডিয়ায় দীপাংশুর বিরুদ্ধে অত্যাচার, নিগ্রহ নিয়ে সরব হয়েছেন। যা নিয়ে কার্যত তোলপাড় পড়ে গিয়েছে রবিবার সন্ধ্যা থেকে।

শ্রেয়সী চৌধুরী নামের এক মহিলা ফেসবুকে দীর্ঘ একটি পোস্ট করেছেন। তাতে তিনি লেখেন ২০০৮ সালে দীপাংশুর সঙ্গে তিনি সম্পর্কে জড়ান। কিন্তু কিছুদিন পর থেকেই শুরু হয় মারধর। তাঁর অভিযোগ, ২০০৯-এর কলকাতা বইমেলার মাঠেই তাঁকে প্রকাশ্যে নিগ্রহ করেন দীপাংশু। তাঁর দাবি, অনেক বন্ধুবান্ধবীই নাকি সেই ঘটনার সাক্ষী।

শ্রেয়সী আরও লিখেছেন, “জাস্ট টিকে থাকা যাচ্ছিল না!” দীর্ঘ পোস্টে এমন সব অভিযোগ করেছেন এই তরুণী তা কার্যত শিউরে ওঠার মতো। তাঁর বাড়িতে গিয়ে হেনস্থা করার কথাও লিখেছেন তিনি। শ্রেয়সীর অভিযোগ, তাঁর কবিতার খাতায় আগুন পর্যন্ত ধরিয়ে দিয়েছিলেন এই অভিনেতা তথা লেখক। তারপর দীপাংশুর ‘খপ্পর’ থেকে কোনও ক্রমে বের হন শ্রেয়সী।

এরপর যাদবপুরের  শ্রীতমা ভট্টাচার্যের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান দীপাংশু। তাকে বিয়েও করেন। এখন আলাদা থাকলেও আইনি বিচ্ছেদ হয়নি। সেই শ্রীতমাও একই অভিযোগ করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। গৃহ হিংসার বিস্ফোরক অভিযোগ করেছেন তিনি।

শ্রীতমাকে হেনস্থার ঘটনা এর আগেও সোশ্যাল মিডিয়ায় এসেছিল। দীপাংশু তারপর প্রকাশ্যে ক্ষমাও চান। অভিযোগ, তারপরেও একই ঘটনা ঘটে। যদিও তরুণ অভিনেতার বক্তব্য, বেশ কিছু ক্ষেত্রে রঙ চড়িয়ে বলা হচ্ছে।

দীপাংশুর ঘনিষ্ঠ সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০০৬-০৭ সাল নাগাদ স্বচ্ছতোয়া নামের এক তরুণীকে বিয়ে করেছিলেন তিনি। সেটাই ছিল তাঁর প্রথম বিয়ে। তাও নাকি হঠাত্‍ই। কয়েক ঘণ্টার নোটিসে শেওড়াফুলি নিস্তারিণী কালীবাড়িতে সেই বিয়ের আয়োজন করেছিলেন তাঁর বন্ধুরাই। কিন্তু সেই সম্পর্কও বেশিদিন টেকেনি।

দীপাংশুর উঠে আসা
হুগলির শেওড়াফুলির ছেলে দীপাংশু। বাবা ছিলেন প্রখ্যাত ম্যাজিশিয়ান সমীরণ আচার্য। ছোট থেকেই ম্যাজিক, আঁকার আবহে বড় হওয়া তাঁর। শেওড়াফুলি সুরেন্দ্রনাথ স্কুলের ছাত্র ছিলেন। তারপর বায়ো সায়েন্স নিয়ে ভর্তি হন উত্তরপাড়া কলেজে। সেখানে বাম ছাত্র আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন।

তাঁর ঘনিষ্ঠরা বলছেন ওর সবটাই ক্ষণস্থায়ী। গ্র্যাজুয়েশন শেষ করার আগেই কলেজ ছেড়ে দেন বলে জানা গিয়েছে। তারপর শুরু ম্যাগাজিনে লেখালিখি। ‘অমলেট’ নামের একটি বাংলা ব্যান্ডও করেছিলেন।

এরপর মীরাক্কেলের চিত্রনাট্যকার হিসেবে কাজ করেন দীর্ঘদিন। একটি সিজনে পারফর্মও করেন। তখন মীরাক্কেলের পরিচালক রাজ চক্রবর্তী। আই লাফ ইউ নামক একটি স্ট্যান্ড আপ কমেডি শোয়েও দীপাংশু ছিলেন অন্যতম। তারপর রাজ চক্রবর্তী পরিচালিত চ্যালেঞ্জ সিনেমায় তাঁর প্রথম গান লেখা। ‘বন্ধুরা এলোমেলো, মুঠো ভরে নিয়ে এলো, আনকোড়া সূর্যের লাল….’-এর গীতিকার দীপাংশু।

এই করতে করতে রেডিওতে কাজ শুরু আরজে হিসেবে। কিন্তু কোনও জায়গাতেই বেশিদিন নয়। একাধিক কবিতার বই রয়েছে তার। অনেকে বলেন, রবীন্দ্র যুগের সাহিত্য ভাষার সঙ্গে অবলীলায় রকের ভাষা মিশিয়ে দিতে পারেন দীপাংশু, যা তাঁর নিজস্ব স্টাইল তৈরি করতে পেরেছে। প্যারোডিও লেখেন দুর্দান্ত।

ঘনিষ্ঠদের বক্তব্য, প্রথম থেকেই বেপরোয়া জীবনযাপন দীপাংশুর। বারবার জড়িয়েছেন ধার-দেনায়। নেশা করাও অন্যতম রোগে পরিণত হয়েছে বলে দাবি অনেক বন্ধুবান্ধবীর। এবার সেই তিনিই ভয়ঙ্কর অভিযোগের মুখে।

অভিযোগ ও পাল্টা অভিযোগ

এই অভিযোগের মধ্যেই ফেসবুকে খুব কম হলেও একাংশ বলছেন, শিল্পীর ব্যক্তি চরিত্র দিয়ে তার শিল্পগুণকে কখনওই খাটো করা যায় না। আবার অন্যদের বক্তব্য, কেউ ভাল লেখেন বা অভিনয় করেন মানেই তাঁর অধিকার জন্মায় না স্ত্রীকে পেটানোর বা বান্ধবীকে নিগ্রহ করার। প্রগতিশীল গানের এক অন্যতম বড় নামের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠেছিল অতীতে। তিনি নাকি স্ত্রীর গায়ে সিগারেটের ছ্যাঁকা দিতেন। পরে তিনি সাংসদও হন।

ছবি কৃতজ্ঞতা ও সূত্রঃ দ্য ওয়াল


এই বিভাগের আরো খবর
greengrocers

Categories

Archives