শিরোনাম
আইডিইবি ইন্ডাস্ট্রিয়াল এন্ড এন্টারপ্রেনার্স ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন এর কমিটি গঠন ডিজিটাল বাংলাদেশের পরবর্তী ধাপ ক্যাশলেস সোসাইটি : জয় এসএমই ফাউন্ডেশনের ১০০’ কোটি টাকা ঋণের ৩৩ শতাংশ পেয়েছেন নারী উদ্যোক্তারা নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের আঁতাতকরী বিএনপি নেতা নাসিরকে গনধোলাই দিলো কর্মীরা প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা নিয়ে স্বজনপ্রীতি সহ্য করা হবে না : ওবায়দুল কাদের করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় ৩২০০ কোটি টাকার নতুন প্রণোদনা প্যাকেজের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের হাসেম ফুড পরিদর্শনে এসে বিএনপির দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, পুলিশের লাঠিচার্জ চলমান লকডাউন শিথিল, ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর বিধি-নিষেধের প্রজ্ঞাপন জারি রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘে প্রস্তাব গৃহীত করোনা রোগীর চাপে চট্টগ্রাম মেডিকেলে সাধারণ রোগী ভর্তি বন্ধ করে দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪৬ অপরাহ্ন

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির আইন অনুষদের ২৬ বছর

ফিচার ডেস্ক রিপোর্ট, পিআরবি নিউজ
আপডেট শনিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২১

আইন পেশায় রয়েছে খ্যাতি আর তার সঙ্গে রয়েছে মানুষের সেবায় নিজেকে যুক্ত করার অপূর্ব সুযোগ। বর্তমানে বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে এ বিষয়ে পড়ার সুযোগ রয়েছে।বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অন্যতম। আসুন জেনে নেই এ বিষয়ে পড়ার বিস্তারিত।
ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রযাত্রার প্রাক্কালেই প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ১৯৯৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এবিএম মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী প্রতিষ্ঠা করে। তিনি একাধারে আইনবিদ ও মানবাধিকার বিজ্ঞানী। তার রচিত আইন ও মানবাধিকার সংক্রান্ত গ্রন্থ দেশে বিদেশে প্রশংসনীয়। বিশ্বের কয়েকটি দেশের ইউনিভার্সিটিতে তার রচিত গ্রন্থ পাঠ্য তালিকায় অন্তর্ভুক্ত। ড. পাটোয়ারী আইন শাস্ত্রের অধ্যাপক ও গ্রন্থ প্রণেতা তাই তার প্রতিষ্ঠিত আইন অনুষদ সর্বোচ্চ গুরুত্ব পেয়েছে। উল্লেখ্য যে, বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের মধ্যে প্রথম আইন বিভাগ চালু করা হয় এই ইউনিভার্সিটিতে।
বর্তমানে আইন অনুষদে মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে ছাত্রছাত্রীরা এখানে পড়ালেখা করার সুযোগ পায়। দিবা শাখার পাশাপাশি সান্ধ্যকালীন শাখাতেও এখানে পড়ালেখার সুযোগ রয়েছে।

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির আইন অনুষদে যে কোর্সসমূহে ছাত্রছাত্রী ভর্তি করা হচ্ছে সেগুলো হলো : চার বছর মেয়াদী এলএলবি (সম্মান) দিবা শাখা, চার বছর মেয়াদী এলএলবি (সম্মান) সান্ধ্যকালীন শাখা, দুই বছর মেয়াদী এলএলবি (পাস) প্রোগ্রাম, এক বছর মেয়াদী এলএলএম (মাস্টারস) প্রোগ্রাম, দুই বছর মেয়াদী এলএলএম (মাস্টারস) প্রোগ্রাম। এছাড়াও অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের অধীনে দুই বছর মেয়াদী মাস্টারস অব হিউম্যান রাইটস ‘ল’ প্রোগ্রাম চালু রয়েছে। যা বাংলাদেশে আর কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে নেই।


বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও আইনজ্ঞ কর্তৃক এ অনুষদের একাডেমিক সিলেবাসগুলো প্রণীত এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন কর্তৃক অনুমোদিত। জ্ঞান ও বেধা বৃদ্ধি এবং আইন বিষয়ে শিক্ষার্থীদের বাস্তব ধারণা প্রদানের লক্ষ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথিতযশা আইনের অধ্যাপক, অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি ও বিখ্যাত আইনজীবী সমন্বয়ে আইন অনুষদের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। শুধুমাত্র পুঁথিগত বিদ্যায় পাঠদান সীমাবদ্ধ না রেখে নিয়মিতভাবে এখানে বিভিন্ন সেমিনার, সিম্পোজিয়াম ও ওয়ার্কশপ এর আয়োজন করা হয়ে থাকে।
একজন সফল আইনজীবী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে ছাত্রছাত্রীরা যাতে আইনের জটিল বিষয় মোকাবেলা করতে পারে সে জন্য এখানে ‘বার প্রাকটিশনারস ট্রেনিং প্রোগ্রাম (বিপিটিসি)’ নামে একটি কোর্স চালু রয়েছে। এ কোর্সের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের আদালতের কার্যধারা, বিভিন্ন ধরনের ড্রাফটিং, এ্যাডভোকেসি ইত্যাদি বিষয়ে হাতে কলমে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। সম্প্রতি এ কোর্সটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে শিক্ষার্থীরা ডিগ্রী গ্রহণ করে এবং আদালতে প্রাকটিশনার আইনজীবী হিসেবে কাজ শুরু করতে পারে তার জন্য এ ব্যবস্থা।
আইন বিভাগের ছাত্রছাত্রীরা বার কাউন্সিল পরীক্ষায় প্রায় শতভাগ পাশ করে আসছে। বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশকৃত  আইনজীবী দেশে প্রায় সকল  আদালতে পেশাভুক্ত হয়েছেন। বিচার ও প্রশাসন বিভাগে বিচারক ও ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শিক্ষার্থী কর্মরত আছেন।
ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে পাশ করা গ্রাজুয়েটরা দেশ-বিদেশের বিভিন্ন নামকরা অর্গানাইজেশনে সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন । এই ইউনিভার্সিটির পাশকৃত গ্র্যাজুয়েটরা এরই মধ্যে উল্লেখযোগ্য অংশ হিসেবে বিসিএস এর বিভিন্ন ক্যাডারে কর্মরত।বাংলাদেশের স্বনানধন্য টেলিভিশন চ্যানেলে সংবাদ পাঠক, রিপোর্টার,প্রডিউসার ও চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবেও সুনাম কুড়াচ্ছে । একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ঢাকা ইউনিভার্সিটির অভিজ্ঞ শিক্ষকেরা ছাত্র-ছাত্রীদের কে যোগ্য নাগরিক হিসেবে তৈরি করছেন। ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ছাত্র-ছাত্রীরা শুধু একাডেমিক কার্যক্রমে নিজেদের মেধাকে সীমাবদ্ধ রাখেননি। বছরের বিভিন্ন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ফুটবল টুর্নামেন্ট, ক্রিকেট টুর্নামেন্ট , কম্পিউটার প্রোগ্রামিং কম্পিটিশন ,ইনডোর গেমস, ইন্টারন্যাশনাল ট্যুর ,ন্যাশনাল ট্যুরের আয়োজন করেছেন। ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং ক্লাব ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার জাতীয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন । ট্রাস্টি বোর্ডের বর্তমান চেয়ারম্যান শামীম হায়দার পাটোয়ারী এমপি এর পৃষ্ঠপোষকতায় ক্লাবটিতে বেশ কয়েকজন আন্তর্জাতিক মানের বিতার্কিক তৈরি হয়েছে। ডিআইইউ সর্বশেষ জাতীয় বিতর্কে বিইউবিটিকে যুক্তিতর্কে ধরাশায়ী করে চ্যাম্পিয়নশীপ জিতে নিয়েছে।
শিক্ষার্থীদের ইংরেজী ভাষার ওপর দক্ষতা অর্জনের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে ইন্টারন্যাশনাল ল্যাংগুয়েজ ইনস্টিটিউট, ঢাকা এর সঙ্গে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এর এমওইউ স্বাক্ষর করেছে। ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সকল শিক্ষার্থীকে ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজকে কোর্সকে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। বেসিক ইংলিশ, ফাংশনাল ইংলিশ, প্রিলিমিনারি ইংলিশ ও এ্যাডভান্স ইংলিশ কোর্সও বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
লাইব্রেরী : ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে রয়েছে ৩টি সু-সজ্জিত সমৃদ্ধ লাইব্রেরী। এখানে রয়েছে দেশী- বিদেশী পর্যাপ্ত বই ও জার্নাল। লাইব্রেরীতে শিক্ষার্থীরা নিরিবিলি পরিবেশে সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত পড়াশোনা করতে পারেন। প্রয়োজনে লাইব্রেরী থেকে বই বাসায় নিয়ে পড়াশোনা করতে পারেন। তাঁর জন্য রয়েছে ই-লাইব্রেরী কার্ড।
পরিবহন : ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ছাত্রছাত্রী, শিক্ষক, কমকর্তা ও কর্মচারীদের ক্যাম্পাসে আসা যাওয়ার জন্য পরিবহন সুবিধা রয়েছে।
আবাসিক ব্যবস্থা: ছাত্রছাত্রীদের আবাসিক সমস্যা দূরীকরণের লক্ষ্যে এ ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাসের সন্নিকটে রয়েছে ৭টি হোস্টেল, তার মধ্যে ছেলেদের জন্য রয়েছে ৫টি এবং মেয়েদের জন্য রয়েছে ২টি হোস্টেল।
বৃত্তি : ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়-২০১০ এর আইন অনুযায়ী দরিদ্র, মেধাবী ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের বৃত্তি প্রদান করা হয়। এ ছাড়া যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বরধারীদের বিনা বেতনে অধ্যয়নের সুযোগ রয়েছে। বর্তমানে প্রায় ৩শ’ জন শিক্ষার্থী সম্পূর্ণ বিনা বেতনে অধ্যয়নরত।
স্বাস্থ্য সেবা : শিক্ষার্থীদের সার্বক্ষণিক সেবাদানের জন্য রয়েছেন একজন পূর্ণকালীন অভিজ্ঞ ও উচ্চতর ডিগ্রিধারী এমবিবিএস ডাক্তার।
স্থায়ী ক্যাম্পাস : ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাস বাড্ডার সাঁতারকুলে স্থাপন করা হয়েছে। ৩টি সুরম্য ভবন নির্মিত হয়েছে। সবুজে ঘেরা ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরা স্থায়ী ক্যাম্পাসটি পরিবেশ মনোমুগ্ধকর। স্থায়ী ক্যাম্পাসে ব্যায়ামাগার ও আধুনিক অডিটোরিয়াম রয়েছে। স্থায়ী ক্যাম্পাস ছাড়াও বনানী ও গ্রিন রোডে দুটি ক্যাস্পাস রয়েছে।”
সামছুল আলম সাদ্দাম
লেখকঃ সাবেক শিক্ষার্থী,আইন বিভাগ, ডিআইইউ


এই বিভাগের আরো খবর
greengrocers

Categories

Archives